এক জন দুর্ভাগা নাজমুল হোসেন

বাংলাদেশ এর ক্রিকেট ইতিহাসে যদি দুর্ভাগা কোন খেলোয়াড় থাকে তাহলে সবার উপরের দিকে এই নাম টি আসবে নাজমুল হোসেন ।

 

১৯৮৭ সালের আজকের দিনে হবিগঞ্জ জেলায় জন্ম গ্রহণ করেন নাজমুল হোসেন । জন্মদিনের নাজমুল ভাই এর কে ক্রিকেটখোর এর পক্ষ থেকে রইল অনেক অনেক শুভেচ্ছা ও শুভ কামনা ।

 

২০০৪ সালে ওয়ানডে অভিষেক হয় দঃ-আফ্রিকার বিপক্ষ৬-০১-১৭-০ উইকেট না পেলে ও অসাধারণ লাইন- ল্যাংথ এর জন্য সবার নজরে আসেন, যা ওয়ানডেতে অনেক কার্যকর ভূমিকা রাখে । ৩য় ম্যাচ এ নিউজিল্যান্ড এর বিপক্ষে ৪উইকেট নিয়ে ২২৪ রানে অল-আউট করে দিলে ও ব্যাটসম্যান এর ব্যার্থতায় দল হারে ।২০০৪ সালে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশ এর প্রথম জয়ে কোন উইকেট না পেলে ও ৭-০-২৬-০ রান এর স্পেল টা দলের জয়ে ভূমিকা রাখে দারুণ ইকোনোমিক্যাল বোলিং ভারতের রান তুলতে কষ্ট হয় , ২০০৫ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশ এর প্রথম জয়ে ম্যাথু হেইডেন এর ভয়ানক উঠার সময় দারুণ এক ইয়র্কার এ বোল্ড করে দেন নাজমুল ।

 

কিন্তু ইনজুরি নাজমুল কে দুই বছর মাঠের বাহিরে রাখে , ২০০৯ সালে জিম্বাবুয়ে কে ৪৪ #রানে_অলআউট করার পিছনে শুরুটা নাজমুলই করেন তার প্রথম দিকে ভয়ানক স্পেল ৬-০২-১০-২ । ২০০৯ সালে ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্ট এর ফাইনাল এ শ্রীলংকা #প্রথম ৬/৫ উইকেট এর কথা সবাই মনে রাখার কথা সেই ম্যাচ এ নাজমুল এর বোলিং তোপে অসহায় ছিল শ্রীলংকার ব্যাটসম্যানরা প্রথম স্পেল টা ছিল ৬-০৩-৮-৩ ।২০১০ সালে নিউজিল্যান্ড এর বিপক্ষে বাংলাদেশ জয় লাভ করলে ও সেই ম্যাচ এর শেষ দিকে রিটার্ন ক্যাচ নিতে গিয়া ইনজুরিতে পড়েন। ২০১২ সালে এশিয়া কাপে শ্রীলংকার বিপক্ষে নাজমুল প্রথম স্পেল ৫-০১-২০-৩ উইকেট যা বাংলাদেশ কে জয়ে প্রধান ভূমিকা রাখে এই ম্যাচ টি ছিল নাজমুল ক্যারিয়ার শেষ ম্যাচ এর আগের ম্যাচ ।

এশিয়া কাপের পাকিস্তানের বিপক্ষে ফাইনাল ম্যাচ ও নাজমুল এর শেষ ম্যাচ ৮-০১-৩৬-১ উইকেট নেন , শেষ ওভারে আমাদের ক্যাপ্টেন মুশফিক নাজমুল কে বল না দিয়ে #শাহাদাৎ কে দেন যার ফলাফল সবাই জানেন আর এইখানে কোন এক অজানা কারনে নাজমুল এর ক্যারিয়ার শেষ । ওয়ানডে তে ৩৮ ম্যাচ ৪৪ উইকেট সব চাইতে দেখার বিষয় তার ইকোনোমি ৫.০৪ ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here